ম্যাচ হেরেও নকআউট পর্বে মেসি-নেইমাররা

0
41
নকআউট

খেলাধুলা ডেস্কঃ আগের ম্যাচে ঘরের মাঠে ম্যানচেস্টার সিটিকে ২-০ গোলে হারালেও এবার আর পারল না পিএসজি। গুরু পেপ গার্দিওলার কাছে হেরে গেলেন লিওনেল মেসি। ইতিহাদ স্টেডিয়ামে তারকায় ঠাসা পিএসজিকে ২-১ গোলে হারিয়ে গ্রুপসেরা হয়ে নকআউট পর্বের টিকিট নিশ্চিত করল ইংলিশ চ্যাম্পিয়নরা।

এদিকে বুধবার রাতে হারলেও দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে পিএসজির সমস্যা হয়নি। গ্রুপ রানারআপ হয়েই তারা উঠেছে পরের পর্বে। একই সময়ে শুরু হওয়া আরেক ম্যাচে ক্লাব ব্রুজকে ৫-০ গোলে হারিয়ে দেয় লাইপজিগ। বিশাল এই পরাজয়ই ফরাসি ক্লাবটিকে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠতে সাহায্য করেছে।

ম্যাচের প্রথমার্ধজুড়ে ম্যানচেস্টার সিটির একের পর এক আক্রমণে কোণঠাসা হয়ে পড়ে পিএসজি। যদিও সাফল্য পায়নি সিটির স্ট্রাইকাররা। ৩৩তম মিনিটে গিনদোয়ানের বুলেট গতির শট পোস্টে বাধা পায়। মুহূর্ত পরই মাহরেজের আরেক শট ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে জাল অক্ষত রাখেন নাভাস।

গোলশূন্য অবস্থায় শেষ হয় প্রথমার্ধ। দ্বিতীয়ার্ধ শুরু হতেই দলকে এগিয়ে দেন পিএসজির ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে। ডি-বক্সের বাইরে আন্দের এররেরার সঙ্গে ওয়ান-টু-ওয়ান খেলে ভিতরে ঢুকে মেসি বল বাড়িয়ে দেন এমবাপ্পের পায়ে। ঠান্ডা মাথায় কাছের পোস্ট দিয়ে ম্যানসিটির জালে বল জড়িয়ে দেন ফরাসি ফরোয়ার্ড।

তবে পাল্টা জবাব দিতে খুব বেশি সময় নেয়নি সিটি। ৬৩তম মিনিটে বাঁ থেকে সতীর্থের বাড়ানো ক্রসে বাইলাইনের কাছ থেকে লাফিয়ে নেওয়া ভলিতে গোলমুখে বল বাড়ান কাইল ওয়াকার। স্টার্লিং আলতো শটে খুঁজে নেন ঠিকানা।

৭০তম মিনিটে জেসুসের শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান নাভাস। খানিক পর দারুণ একটি গোল হতে পারতো নেইমারের। আনহেল ডি মারিয়ার সঙ্গে বল দেওয়া নেওয়া করে ডি-বক্সে ঢুকেও লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন ব্রাজিলিয়ান তারকা।

তবে এর ৬ মিনিট পর সফল হয় ম্যানসিটি। ডান দিক থেকে দূরের পোস্টে ক্রস বাড়ান মাহরেজ। বের্নার্দো সিলভা শট নিয়ে ছোট করে পাস বাড়ান জেসুসের পায়ে। ডান পায়ের শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার।

শেষ দিকে পিএসজি কিছুটা চাপ বাড়ানোর চেষ্টা করলেও উল্লেখযোগ্য তেমন কিছুই করতে পারেনি তারা। মেসি-নেইমার-এমবাপ্পের সেরা আক্রমণ সহজভাবেই প্রতিহত করে ম্যানসিটির ডিফেন্ডাররা।

এএস/

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে