রাজশাহীতে সাংবাদিক নেতার চাল আত্মসাতের প্রমাণ পেল তদন্ত কমিটি

0
6

রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আরটিজেএ) সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সভাপতি মেহেদী হাসান শ্যামলের বিরুদ্ধে করোনাকালে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া অনুদানের চাল আত্মসাতের প্রমাণ পেয়েছে আরটিজে’র তদন্ত কমিটি।

সরেজমিনে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও সংশ্লিষ্টদের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এ প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি। ইতিমধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদনটি কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় উত্থাপনের জন্য আরটিজেএ’র বর্তমান সাধারণ সম্পাদকের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মেহেদী হাসান শ্যামল রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের নাম ব্যবহার করে করোনার সময় প্রধানমন্ত্রীর অনুদান দেয়া এক হাজার কেজি জিআর চাল উত্তোলন করেছেন। চাল উত্তোলনের বিষয়ে তৎকালীন নির্বাহী কমিটি, এমনকি সাধারণ সদস্যরাও অবগত নন বলে তদন্ত কমিটি প্রমাণ পেয়েছে। সেইসাথে এ বিষয়ে বিগত নির্বাহী কমিটির কোনো রেজুলেশনও পাওয়া যায়নি। প্রাপ্ত কাগজপত্র অনুযায়ী যা প্রমাণিত।

তদন্ত কমিটি মনে করে, মেহেদীর এমন কর্মকাণ্ডে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। মেহেদী হাসান শ্যামল সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা গঠনতন্ত্রের ৮ এর (গ) ধারার লঙ্ঘন। যেহেতু তিনি কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন, সেহেতু এই কমিটি মনে করে- এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য কার্যনির্বাহী কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক তদন্ত প্রতিবেদনটি সাধারণ সভায় উত্থাপন করা হবে।

এর আগে আরটিজেএ’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সভাপতি মেহেদী হাসান শ্যামলের বিরুদ্ধে গত ২৭ সেপ্টেম্বর দৈনিক সোনালী সংবাদে ‘সাংবাদিক নেতার বিরুদ্ধে সরকারি চাল আত্মসাতের অভিযোগ’ এবং গত ২৭ সেপ্টেম্বর দৈনিক ভোরের কাগজে ‘আরটিজেএ’র নামে চাল বরাদ্দ নিয়ে লোপাট, তদন্তের নির্দেশ জেলা প্রশাসকের’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদে উত্থাপিত অভিযোগের বিষয়ে তদন্তের জন্য ৩০ সেপ্টেম্বর কার্যনির্বাহী কমিটির সভা আহ্বান করে রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন।

সভায় গঠনতন্ত্রের ৮ এর (গ) ধারা মোতাবেক পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে সংগঠনটি। কমিটিতে আরটিজেএ’র প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাংবাদিক আজিজুল ইসলামকে আহ্বায়ক করা হয়। সদস্য সচিব করা হয় সংগঠনের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের সাংবাদিক মাইনুল হাসান জনিকে। সদস্য করা হয় তিনজনকে। তারা হলেন- এনটিভি’র শ.ম সাজু, একুশে টেলিভিশনের বদরুল হাসান লিটন ও মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের গোলাম রাব্বানী।

তদন্ত কমিটির প্রথম সভা গত ৮ অক্টোবর। সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের সুত্র ধরে তদন্ত কমিটি সরেজমিন তদন্ত কাজ শুরু করেন। তদন্ত সংশ্লিষ্ট প্রমাণসমূহ সংগ্রহ করার পর গত ১২ নভেম্বর তদন্ত কমিটির চুড়ান্ত সভায় তদন্তে প্রাপ্ত তথ্যসমূহ বিশ্লেষণ করে আলোচনা করা হয়।
সভা থেকে কমিটি নিশ্চিত হয়- মেহেদী হাসান শ্যামল সংগঠনের নাম ও পদবী ব্যবহার করে সংগঠনের নামে করোনাকালে প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দকৃত অনুদানের এক হাজার কেজি সরকারি চাল উত্তোলন করেছেন।
এনিয়ে জানতে চাইলে আরটিজেএ’র তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক আজিজুল ইসলাম জানান, গত ১৫ নভেম্বর তদন্ত কমিটি সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। পরবর্তী ব্যবস্থা নির্বাহী কমিটি গ্রহণ করবে।
আরটিজেএ’র বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হাসান জনি জানান, তদন্ত কমিটির প্রতিবদেনটি হাতে পেয়েছি। দ্রুত সময়ে কার্যনির্বাহী কমিটির সভা আহ্বান করা হবে। সভায় সংগঠনের গঠনতন্ত্র মোতাবেক সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে