২১ কেজি গাঁজা ও ১১৩ বোতল ফেন্সিডিলসহ র‌্যাবের হাতে আটক-৩

নিজস্ব প্রতিনিধি

0
4
২১ কেজি গাঁজা ও ১১৩ বোতল ফেন্সিডিলসহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৫, রাজশাহী। রবিবার (৬ নভেম্বর) বেলা ৩ টায় নাটোর জেলার সদর থানার পূর্ব হাগুরিয়া গ্রামে অপারেশন পরিচালনা করে তিন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়।
আটকৃতরা পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলির মৃত আবদুল আজিজের ছেলে শাহিন হোসেন সবুজ (২৭), একই উপজেলার ফরিদপুর গ্রামের হারুন উদ্দিনের ছেলে আসাদুল ইসলাম (২৫) ও নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার রাজাপুরের মোঃ ইদ্রিস এর ছেলে হৃদয় মোল্লা (২৫)।
আটক কৃতদের সাথে থাকা ২টি প্রাইভেট কার,৫টি মোবাইল ফোন, ৯টি সীমকার্ড, ২ সেট গাড়ীর কাগজ ও ২টি ড্রাইভিং লাইসেন্স উদ্ধার করা হয়েছে। র‌্যাব-৫ এর এক প্রেস বিজ্ঞাপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫, রাজশাহীর সিপিএসসি, মোল্লাপাড়া ক্যাম্পের একটি অপারেশন দল জানতে পারে কিছু মাদক ব্যবসায়ী ২টি প্রাইভেট কারে বহন করে মাদকদ্রব্যসহ বগুড়া থেকে রাজশাহীর দিকে আসছে। বিষয়টি জানামাত্রই র‌্যাবের গোয়েন্দা দল নাটোর জেলার সদর থানার পূর্ব হাগুরিয়ার মেসার্স এফএনএ ফিলিং স্টেশনের উত্তর-পূর্ব দিকে পূর্ব হাগুরিয়া ব্রীজের উপর চেকপোষ্ট পরিচালনা করে। চেকপোষ্ট চলাকালীন ৬ নভেম্বর মধ্যরাত ১.৪৫ মিঃ বগুড়া থেকে রাজশাহীর দিকে ২টি সাদা রংয়ের প্রাইভেট কার চেকপোষ্টের সামনে আসলে সিগন্যাল দিয়ে গতিরোধ করে ঘটনাস্থলে থামানো হলে ৪ জন ব্যক্তি প্রাইভেট কার ২ টির দরজা খুলে পালানোর চেষ্টাকালে প্রাইভেটকারসহ ৩জন ব্যাক্তিকে ঘটনাস্থলেই আটক করা হয়। অপর ১ জন কৌশলে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।
তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, বর্নিত প্রাইভেট কারটির মধ্যে লুকায়িত অবস্থায় পিছনের ব্যাকডালা বক্স এর ভিতরে গাঁজা ও ফেন্সিডিল আছে। তারা এবং পলাতক অজ্ঞাতনামা ১জন আসামীসহ যোগসাজসে গাঁজা এবং ফেন্সিডিলগুলো কুমিল্লা থেকে নিয়ে রাজশাহী জেলার বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করার জন্য রাজশাহীর দিকে প্রাইভেট কারে করে জব্দকৃত মাদকদ্রব্য গাঁজা ও ফেন্সিডিল নিয়ে আসছিল এবং এর আগেও তারা আরো কয়েকবার এভাবে প্রাইভেট কারের ভিতরে মাদকদ্রব্য সরবরাহ করেছিল।
আসামীদের বিরুদ্ধে নাটোর জেলার সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে