বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. ইমদাদ না ফেরার দেশে

নিজস্ব প্রতিনিধি

0
2

মুক্তযুদ্ধকালীন ৭ নং সেক্টরের ৪ নং সাব-সেক্টরের চীফ মেডিকেল অফিসার বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. মোঃ ইমদাদুল হক আর নেই। রবিবার (২২ জানুয়ারি) সকাল ৭টায় নিজ বাসভবনে বার্ধক্য জনিত কারণে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর।

তিনি রাজশাহী নগরীর বড়কুঠি এলাকার মরহুম (ডাঃ আজিজুল হক) হাজী ডাক্তারের বড় ছেলে এবং সিটি ফার্মেসির স্বত্বাধিকারি আলহাজ্ব জিয়াউল হক বুলু’র বড় ভাই। তিনি দুই ছেলে ও দুই মেয়ে সহ অসংখ্য আত্বীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
উল্লেখ্য, তিনি ছিলেন সমাজসেবক ও চিকিৎসক, লায়ন্স আই হসপিটাল রাজশাহী এবং ডায়াবেটিক কল্যাণ কেন্দ্র রাজশাহীর প্রতিষ্ঠাতা। মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি সংগঠক হিসেবে কাজ করেছেন এবং মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় ৭ নম্বর সেক্টরের ৪ নম্বর সাব-সেক্টরের  চীফ মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজের দ্বিতীয় ব্যাচের ছাত্র এবং পরবর্তীতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের প্যাথলজি বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। তিনি নগরীর তালাইমারী এলাকায় ৩২ বছর আগে তাঁর নিজের প্রতিষ্ঠিত ডায়াবেটিক কল্যান কেন্দ্রে চেম্বারে রোগী সেবা করে গেছেন মৃত্যুর আগ পর্যন্ত। পেশাগত অভিজ্ঞতায় নানা জটিল রোগের চিকিৎসা দিয়ে সফল হয়েছেন সবসময়েই। নামমাত্র ফি নিয়ে রোগী সেবা করায় স্বল্প আয়ের ও নিম্নবিত্ত  মানুষের কাছে তিনি ছিলেন অত্যান্ত জনপ্রিয় একজন ডাক্তার। রোগীর আর্থিক অবস্থা আন্দাজ করে তিনি মাত্র ১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০০ টাকা ফি নিয়েছেন শেষদিন পর্যন্ত ।

মরহুমের জানাজা নামাজ রবিবার বাদ আছর টিকাপাড়া কবরস্থান ঈদগাহ মাঠে  অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং টিকাপাড়া কবরস্থানে দাফন  সম্পন্ন হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, রাজশাহী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের রাজশাহী জেলা ও মহানগর ইউনিটের সম্মানিত বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ আব্দুল মান্নান, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাজাহান আলী বরজাহান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াসিন মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দিন শেখ ভুলু, সাবেক মেয়র বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক পিন্টু, বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম প্রমুখ। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের সম্মানিত অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আনিসুল ইসলামের নেতৃত্বে মরহুমকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, তাঁর মৃত্যুতে রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ আলী কামাল, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মহানগর জাসদ, রাজশাহী বরেন্দ্র প্রেসক্লাব সহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন শোক জানিয়েছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে