বিশেষ প্রতিনিধিঃ- রাজশাহী পর্যটন বারের কতিপয় স্টাফ অবৈধভাবে মাদক বিক্রিতে এখনো তৎপর রয়েছেন। প্রশাসনের নাকের ডগায় দিনরাত সর্বদাই অবৈধভাবে হেরোইন, ফেন্সিডিল, ইয়াবাসহ বিভিন্ন ধরণের অবৈধ মাদকদ্রব্য বিক্রি হলেও কোনো ব্যবস্থাই নিচ্ছেনা রাজশাহী মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর ।

জনশ্রুতি আছে, রাজশাহী মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের মুস্টিমেয় কিছু কর্তাকে ম্যানেজ করেই চলছে মাদকের এই রমরমা ব্যবসা। বিধায় দেখেও না দেখার ভান করে রাজশাহী মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর।
এদিকে এসকল কার্যক্রম নিয়ে গণমাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশ হলেও কৌশল পরিবর্তন করে মাদক ব্যবসায় লিপ্ত এই বারের কর্মচারীরা। ফলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে চরম উদ্বিগ্ন রাজশাহী মহানগরীর অভিভাবকবৃন্দ।
আর এই সকল মাদক ব্যবসার অন্যতম মূল হোতাই রাজশাহী পর্যটন বারের সাইদুর রহমান। দেখতে শুনতে এই সাইদুর রহমান ভদ্র, নম্র, মিস্টভাষী হলেও তার কর্মকান্ড বড় বড় অপরাধীদের অপরাধকেও হার মানায়।
অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, রাজশাহী পর্যটন মোটেল বারের এসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার সাইদুর তার কর্মচারিদের দিয়ে মাদকসেবীদের চাহিদামতো বারের ভেতরে ও রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে গিয়ে মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে থাকেন। এমনকি লকডাউনেও থেমে নেই তাদের মাদকের ব্যবসা।

দেশে মহামারি করোনা প্রাদুর্ভাবের ফলে জারিকৃত লকডাউনের সময় সকল হোটেল, রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকাকালীন সময়ে অতিরিক্ত মাদক সরবরাহ করে চলেছেন এই সাইদুর রহমান।

মাদক সরবরাহের সময় প্রায়শই সাইদুর বলে থাকেন আমাকে আটকানোর কেউ নেই । রাজশাহী মহানগরীর বড় বড় অফিসের কর্তারা আমার ভাইয়ের মত। এছাড়াও তিনি রাজশাহী মহানগরীর কয়েকজন বিশিষ্ট আওয়ামীলীগের নেতার নাম ভাঙ্গিয়েও মাঝে মাঝেই ভয় দেখান থানা কিংবা ডিবি পুলিশের এসআই, এএএস আইসহ কন্সটেবলদের।বিধায় ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও সাইদুরকে আটকানোর সাহস করেননা কেহই।

এদিকে অনুসন্ধানে আরো জানা গেছে- মদের লাইসেন্সের শর্ত অনুযায়ী প্রতিদিন ১০ লিটার মাদক সরবরাহের অনুমতি থাকলেও ৪০ লিটার ৫০লিটার পর্যন্ত প্রাকাশ্যে মাদক সরবরাহ করেন সাইদুর।

যার ফলশ্রুতি স্বরুপ গত ২১/০১/২০২১ ইং তারিখ বৃহস্পতিবার রাত্রী ৯ টার সময় রাজশাহী রুয়েট গেটের সামনে থেকে ১৫ টি মদের বোতলসহ রাজশাহী পর্যটন বারের কর্মচারী সজল মিয়াকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-৫ । সেই সময় কর্মচারী সজল র‍্যাবের সামনে তার স্বীকারোক্তিতে এসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার সাইদুর রহমানের নাম উল্লেখ করেন এবং এও জানান তার নির্দেশেই সে এই মদ সাপ্লাই দিতে এসেছেন।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজশাহী
আইন- শৃংখলা বাহিনীর একাধিক
কর্মকর্তা বলেন- রাজশাহী পর্যটন বারের সাইদুরের বিরুদ্ধে আমরা অনেক অভিযোগ পাই কিন্তু কোন অভিযোগকারী না থাকায় আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারিনা।তবে অবৈধভাবে মাদক সরবরাহের বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষন করছি। সুনির্দিষ্ট প্রমান সাপেক্ষেই আমরা তাকে গ্রেফতার করতে পারব বলে আশাবাদী।

তবে সার্বিক বিষয়ে রাজশাহী পর্যটন বারের সাইদুরের রহমানের ০১৯৭০৪৬০০৪২ এবং ০১৭২৮৪৬০০৪২ মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করার চেস্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here