ছিন্নমুল মানুষের মাঝে সেহরি বিতরণ করলেন রকি কুমার ঘোষ

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
8

মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে ত্যাগ ও উৎসবের মাস পবিত্র মাহে রমজান। পবিত্র এই মাসে অনেকের অনেক স্বপ্ন থাকলেও কেউ কেউ না খেয়ে দিন পার করছেন মাঝে মাঝে। তাই পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে রাজশাহীর বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ছিন্নমূল মানুষের মাঝে সেহরির খাবার বিতরণ করেছেন মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের একনিষ্ঠ কর্মী রকি কুমার ঘোষ। তিনি সনাতন ধর্মাবলম্বী হলেও মুসলিমদের প্রতি তার উদারতা ব্যাপক।

১৮ এপ্রিল (২৬ রমজান) ভোরে নগরির সাহেব বাজার, বাস টার্মিনাল, রেলষ্টেশন এলাকা ঘুরে প্রায় ৩০০ জন ছিন্নমূল মানুষের মাঝে সেহরির জন্য খাবার বিতরণ করেছেন।
বিষয়টি নিয়ে এক মুসলিম বলছেন, এই রকি’কেই দেখি মুসলমানদের কোন উৎসব হলে তিনি খুব আনন্দিত হন। তার সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেন। খুব ভাল লাগে তিনি নিঃস্বার্থে এগুলো করেন। প্রতি বছর দেখি এই রকি কুমার ঘোষ তার ব্যক্তি উদ্যোগে জায়নামাজ, পাঞ্জাবি, টুপি, ইফতার বিতরণ করেন। এমনকি যে খাবার খেয়ে একজন মুসলিম রোযা (সিয়াম) রাখেন সেই খাবারও তিনি মন উজাড় করে বিতরণ করছেন। সত্যিই রকি’র তুলনা হয়না।
এব্যাপারে সাবেক এই ছাত্রনেতার সাথে কথা বললে রকি কুমার ঘোষ জানান, আমি যা কিছু করি, তা আমার নেতার নির্দেশে করি। আমার নেতা ও অবিভাবক জননেতা এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ভাই। তার দেখানো দিকনির্দেশনা মোতাবেক আমি সকল কিছু করি। এছাড়া আমাদের সকলের প্রান প্রিয় নেত্রী বলেছেন, “ধর্ম যার যার উৎসব সবার” এই কথাটা আমি মনে প্রানে বিশ্বাস করি। আমি ধর্ম বুঝিনা, আমি বুঝি মানুষ মানুষের জন্য। একজন মানুষ হিসেবে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে এটাই আমার ধর্ম। তাই আমি প্রতিবছর মুসলিম বিশ্বের পবিত্র ঈদ উপলক্ষে গরীব অসহায় মানুষের জন্য কিছুনা কিছু করে থাকি। গত বছর কয়েকটি মাদ্রাসায় ঈদ উপহার দিয়েছে, জায়নামাজ, পাঞ্জাবি দিয়েছি এবং যারা কোরআন শরীফ কিনতে পারেনি আমি তাদের কোরআন কিনে দিয়েছি। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়। কেউ যদি এরকম থাকেন আমাকে জানাবেন আমি গোপনে তাকে কোরআন শরীফ কিনে দিব। আর সকলের উদ্দেশ্য বলবো আগামী আসন্ন সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন। এই নির্বাচনে আমাদের বর্তমান মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ভাইকে ভোট দিবেন। কারন এই অবহেলিত রাজশাহীকে তিনিই বদলে দিয়েছেন। একটি অবহেলিত শহরকে বদলে দিয়ে দেশের শীর্ষ সৌন্দর্যের শহরে রুপান্তর করেছেন। তার উন্নয়নের অনেক কাজ বাঁকি রয়েছে। রাজশাহীর উন্নয়নের স্বার্থে আবারও মেয়র লিটন ভাইয়ের কোন বিকল্প নাই। তাই আসুন দলমত উপেক্ষা করে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ভাইয়ের পক্ষে কাজ করি, ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে